মহামায়াতলা জয়হিন্দ অডিটোরিয়ামে "কবিগুরুর স্মরণে - দেশমাতৃকার চরণে" শীর্ষক অনুষ্ঠান“কবিগুরুর স্মরণে – দেশমাতৃকার চরণে” শীর্ষক অনুষ্ঠান
সব্যসাচী দত্ত ও ফিরদৌসী বেগম 

গড়িয়া — মহামায়াতলা জয়হিন্দ অডিটোরিয়ামে “কবিগুরুর স্মরণে – দেশমাতৃকার চরণে” শীর্ষক অনুষ্ঠান। কবিগুরুর ৮২ তম প্রয়াণ দিবস এবং ভারতবর্ষে ৭৭ তম স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে এই সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। সোনারপুর উৎসব কমিটি তরফে এই কর্মসূচি। সোনারপুর উৎসব কমিটির তরফে এই অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হলেও, অনুষ্ঠানের মূল উদ্যোক্তা এবং যাকে ছাড়া এই অনুষ্ঠান করা প্রায় অসম্ভব তিনি হলেন জনাব নজরুল আলী মন্ডল রাজপুর সোনারপুর পৌরসভার একাধিক বিভাগের সিআইসি। এই অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশনের দায়িত্বে ছিল ওড়িষী নৃত্যের জন্য যিনি জগৎ বিখ্যাত তথা সৌরভ গাঙ্গুলীর স্ত্রী ডোনা গাঙ্গুলী ও তার নাচের সম্প্রদায়,এছাড়াও ছিলেন রবীন্দ্র সংগীতপরিবেশন করেন গায়িকা অদিতি গুপ্ত। নজরুল আলী মন্ডল মহাশয় এদিন জানান পরিকাঠামগত উন্নয়ন,আর্থিক উন্নয়ন ও সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি সাংস্কৃতিক উন্নয়ন খুবই জরুরী মানুষকে বিকশিত করতে। তাই সোনারপুর উৎসব কমিটির তরফে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। মহামায়াতলা জয় হিন্দ অডিটোরিয়াম এই দিন কানায় কানায় দর্শকম পূর্ণ ছিল। উপস্থিত ছিলেন বিধাননগর পৌরসভার চেয়ারম্যান সব্যসাচী দত্ত ও সোনারপুর উত্তরের বিধায়িকা ফিরদৌসী বেগম। অনুষ্ঠানের শুরুতে ডোনা গাঙ্গুলীর বাবা-মাকে সংবর্ধনা জানান জনাব নজরুল আলী মন্ডল ও ফিরদৌসী বেগম। বক্তব্য রাখতে গিয়ে সব্যসাচী দত্ত জানান আপনারা একজন এমন বিধায়ক পেয়েছেন যিনি নিঃশব্দে উন্নয়নের কাজ করে চলেছে,এবং যাকে ছাড়া জয় হিন্দ অডিটোরিয়াম কোনদিন নির্মাণ করা সম্ভব হত না, এমন এক বিধায়ক যিনি নিঃশব্দে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে যান এবং তার বিধানসভা এলাকার জন্য নিঃশব্দে এক একটি করে প্রকল্প নিয়ে আসেন। এই দিন বিশেষ করে মহিলা ও শিশুরা উপস্থিত ছিলেন এই অনুষ্ঠান দেখতে। আরো এই ধরনের সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান করার জন্য সোনারপুর উৎসব কমিটি তথা নজরুল আলী মন্ডলের কাছে আবদার করেন এলাকার বাসিন্দারা। এই ধরনের সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শিশুদের সুস্থ সংস্কৃতি বিকশিত করবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

18 + 19 =