ফের ভয়ঙ্কর বিস্ফোরণে কাঁপল বাংলার মাটি। অতীত থেকে কেন শিক্ষা নিল না প্রশাসন ?
ফের ভয়ঙ্কর বিস্ফোরণে কাঁপল বাংলার মাটি। অতীত থেকে কেন শিক্ষা নিল না প্রশাসন ?
ফের ভয়ঙ্কর বিস্ফোরণে কাঁপল বাংলার মাটি। অতীত থেকে কেন শিক্ষা নিল না প্রশাসন ?
ফের ভয়ঙ্কর বিস্ফোরণে কাঁপল বাংলার মাটি। অতীত থেকে কেন শিক্ষা নিল না প্রশাসন ?

kisi

অভীক পুরকাইত, বারাসাত:-মাস কয়েক আগে এগরা বিস্ফোরণ কাণ্ডের পর রাজ্যের বেআইনি বাজি কারখানার বিষয়টি নিয়ে সরগরম হয়েছিল রাজ্য রাজনীতি। কিন্তু তা সত্ত্বেও এই কারবার যে বন্ধ হয়নি তা দেখিয়ে দিল দত্তপুকুরের ঘটনা।দত্তপুকুরের মোচপোল গ্রামে বিস্ফোরণের ঘটনায় পুলিশ গ্রেফতার করল এক জনকে। বাজি কারখানায় বিস্ফোরণ কাণ্ডে এটাই প্রথম গ্রেফতারি। ধৃত ব্যক্তির নাম সফিকুল ইসলাম। বিস্ফোরণ ঘটা বাজি কারখানায় সফিকুলের অংশীদারিত্ব ছিল বলে জানা গিয়েছে। ধৃত সফিকুল বাজি কারখানার মালিক কেরামত শেখের পার্টনার বলে পুলিশ সূত্রে জানা যাচ্ছে। তবে কেরামতের সন্ধান এখনও পায়নি পুলিশ। কেউ বলছে, বিস্ফোরণে আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন কেরামত। একাংশের দাবি, রবিবারই মৃত্যু হয়েছে তাঁর।মাস কয়েক আগে এগরা বিস্ফোরণ কাণ্ডের পর রাজ্যের বেআইনি বাজি কারখানার বিষয়টি নিয়ে সরগরম হয়েছিল রাজ্য রাজনীতি। কিন্তু তা সত্ত্বেও এই কারবার যে বন্ধ হয়নি তা দেখিয়ে দিল দত্তপুকুরের ঘটনা। মোচপোল গ্রামের এই বিস্ফোরণে ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছেন প্রায় ১০ জন। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, কেরামত শেখই ছিলেন এই বাজি কারবারের মাথা। শামসুল হল নামে স্থানীয় এক বাসিন্দার জমিতেই বাজি কারখানা গড়ে তুলেছিলেন কেরামত। সফিকুল ছিল এই কাজে তাঁর পার্টনার।
এগরার বিস্ফোরণের পর রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে ধরপাকড় শুরু হয়েছিল। সে সময় কেরামত শেখকে গ্রেফতার করেছিল পুলিশ। তখন ৩৭ টন বেআইনি বাজি উদ্ধার করেছিল পুলিশ। কিন্তু জামিনে ছাড়া পাওয়ার পর থেকেই ফের বাজি তৈরির কাজে নেমে পড়ে কেরামত। তারই পরিণতি রবিবার দেখল মোচপোল।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

four × 5 =