আক্রান্ত  আদিবাসী শ্রমিক পরিবারগুলির সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন নওসাদ সিদ্দিকী
আক্রান্ত আদিবাসী শ্রমিক পরিবারগুলির সঙ্গে সাক্ষাৎ করলেন নওসাদ সিদ্দিকী

অভীক পুরকাইত,ভাঙ্গড় :-
ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের চেয়ারম্যান, বিধায়ক নওসাদ সিদ্দিকী গতকাল উত্তর দিনাজপুরের চোপড়া থানার অন্তর্গত আমবাড়ি- লোধাবাড়ি এলাকায় গিয়ে আক্রান্ত আদিবাসী শ্রমিক পরিবারগুলির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। উল্লেখ করা যেতে পারে গত সোমবার (২১ আগষ্ট) অধুনা বন্ধ হওয়া একটি চা বাগানের শ্রমিক বস্তিতে স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস মদতপুষ্ট জমি মাফিয়াদের গুন্ডা বাহিনী ভয়াবহ হামলা চালায় বন্দুক-বোমা নিয়ে। তাদের উদ্দেশ্য ছিল বস্তি থেকে শ্রমিকদের উচ্ছেদ করে জমি দখল। বেপরোয়া এই নৃশংস হামলায় বহু মানুষ আহত হন। দুষ্কৃতীরা বাড়িঘর ভাঙচুর করে, রান্না করার সরঞ্জাম ভেঙে তছনছ করে, ঘরে রাখা চাল ও অন্যান্য খাদ্যদ্রব্য নষ্ট করে দেয়, এমনকি তাদের ভোটার কার্ড, আধার কার্ড সহ বাকি সব গুরুত্বপূর্ণ নথি এবং পোষা গবাদী পশুগুলিও নিয়ে চলে যায়। দুষ্কৃতিরা শিশুদের বই খাতা পর্যন্ত ছাড় দেয়নি। সহায় সম্বলহীন এই মানুষগুলির পাশে আইএসএফ বিধায়ক পৌঁছে যান। তিনি এই নৃশংস ঘটনায় রাজ্যসরকারের ভূমিকায় তীব্র ক্ষোভপ্রকাশ করেন। তিনি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের মেকী আদিবাসী দরদকে কটাক্ষ করে বলেছেন, আদিবাসীদের ব্যবহার করে উৎসব-অনুষ্ঠান করতে তিনি পারেন। কিন্তু এই অসহায় মানুষগুলির জন্য তাঁর কোন সহানুভূতি নেই। তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের বলেছেন, কাজ না পেয়ে এই রাজ্যের মানুষ পরিযায়ী হয়ে যাচ্ছেন আর প্রায়ই লাশ হয়ে বাড়ি ফিরছেন। তিনি এই প্রসঙ্গে সাম্প্রতিক বালেশ্বরের রেল দুর্ঘটনা ও মিজোরামের রেলসেতু ভেঙে পড়ে রাজ্যের বহু পরিযায়ী শ্রমিকের অকাল মৃত্যুর উল্লেখ করেন। তিনি বলেছেন, অবিলম্বে এই আদিবাসী শ্রমিকদের অন্ন-বস্ত্র, বাসস্থানের স্থায়ী সমাধানের দায়িত্ব রাজ্য সরকারকে নিতে হবে। এরা কয়েকদিন ধরে অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন। পরণের কাপড়ও দুষ্কতীরা পুড়িয়ে দিয়েছে। আপাতত আইএসএফের উদ্যোগে ঐ এলাকায় একটি যৌথ রান্নাঘর স্থাপন করা হয়েছে। তিনি অবিলম্বে দুষ্কৃতীদের গ্রেপ্তারের দাবী ও এই ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করার দাবী জানিয়েছেন। এখনও পর্যন্ত এই ঘটনার মূল চক্রীরা গ্রেপ্তার হয়নি কেন, এটাই আশ্চর্যজনক।

এদিকে, বিধায়ক নওসাদ সিদ্দিকী গতকাল ইসলামপুরে চন্দ্রযান-৩ অভিযানের সঙ্গে যুক্ত বিজ্ঞানী অনুজ নন্দীর বাড়িতে গিয়ে তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। উল্লেখ্য, অনুজ নন্দী চন্দ্রযান-৩ এর ক্যামেরা ডিজাইনার। বাংলার এই কৃতি সন্তানের সাফল্যে আমরা সবাই গর্বিত বলে তিনি জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

11 − six =